সরকারের দুর্নীতির কারণেই বিদ্যুৎ সংকট: ডা. জাফরুল্লাহ

সারাদেশের বিদ্যুতের সংকটের পেছনে সরকারের দুর্নীতিই দায়ী বলে মন্তব্য করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি বলেছেন, ‘সরকার এতো দিন বলে আসছে বিদ্যুতে আমাদের সারপ্রাইজ। এখন বলছে সাশ্রয় করতে হবে। দুর্নীতি করলে যা হয়। আমরা এখন সে অবস্থায় আছি।’

বুধবার (৬ জুলাই) দুপুরে রাজধানীতে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পক্ষ থেকে অসহায় ও দুস্থ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন জাফরুল্লাহ চৌধুরী। সেখানে তিনি বক্তব্যে বিদ্যুৎ সংকট নিয়ে মন্তব্য করেন।

ধানমন্ডিতে গণস্বাস্থ্যের সামনে, কদমতলী, হাতিরপুল, পুরানা পল্টন, উত্তর বাড্ডাসহ বিভিন্ন এলাকায় দুই হাজার পরিবারের মাঝে ঈদ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের প্রত্যেকটা ভালো কাজের সুফল সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে না। আজকে বিপুল টাকায় পদ্মা সেতু নির্মাণের কারণে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, এতে সাধারণ মানুষের হাসি কান্নায় পরিণত হয়েছে। চারদিকে অভাব অনটন, কান্না। এর অন্যতম কারণ হলো গণতন্ত্র। সাংবাদিকদের কথা বলতে দিতে হবে। যতো কালাকানুন আছে উঠিয়ে নিতে হবে ‘

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি বলেন, ‘গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র সাংবাদিকদের সবসময় সহায়তা করার চেষ্টা করছে। সাংবাদিকদের সহায়তার পাশাপাশি চিকিৎসা সেবাও দেবে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র।’

‘সামনে কোরবানি ঈদ উপলক্ষে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র প্রতি পরিবারকে চার কেজি চাল, এক কেজি মুরগীর মাংস, আধা লিটার সয়াবিন তেল, দুই কেজি আটা ও আলু, লবণ, মরিচের গুঁড়া, মসলাসহ একটি প্যাকেজ খাদ্য উপহার দিয়েছে। এতে একটি পরিবার অন্তত এক সপ্তাহ খেতে পারবে।‘, জানান জাফরুল্লাহ।

উল্লেখ্য, এর আগে সিলেটে ও সুনামগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলায় ব্যাপকভাবে ত্রাণ বিতরণ ও চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়। ১৭ জুন থেকে বন্যার্তদের মাঝে ১০০ টন শুকনো খাদ্য চিড়া,গুড় বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয় । এর মধ্যে সুনামগঞ্জ ও সিলেটের প্রায় ২০ হাজার পরিবারকে ১০০ টন চিড়া ও গুড়, ২ লিটারের পাঁচ হাজার বোতল সুপেয় খাবার পানি ও গবাদি পশুদের জন্য ১৫ টন গো-খাদ্য বিতরণ করা হয়।

(ঢাকাটাইমস/০৬জুলাই/কেএম)